Tuesday , November 19 2019
Home / bangladesh / ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রতি ক্ষোভ ঝারলেন যুবরাজ

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রতি ক্ষোভ ঝারলেন যুবরাজ



ভারতের হয়ে টি-টোয়েন্টি আর ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ে যুবরাজের অবদান ছিল অবিস্মরণীয়। ২০১১ সালে ঘরের মাঠে মূলত যুবরাজের কাঁধে ভর করেই ২৮ বছর পর দ্বিতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা ঘরে তুলে ভারত। সেবার ৪ টি ফিফটি আর এক সেঞ্চুরিসহ ৩৬২ রান করেছিলেন যুবরাজ। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে স্টুয়ার্ট ব্রডকে এক ওভারে ৬ ছক্কা হাঁকিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েন যুবরাজ। সে ম্যাচে মাত্র ১২ বলে ফিফটির রেকর্ড গড়েন তিনি। অথচ সেই যুবরাজ সম্মানজনক বিদায় নিতে পারেননি। এই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যুবরাজ।

তিনি বলেন, ভারতীয় দল যে তরুণ ক্রিকেটারদের প্রয়োজন টিম ম্যানেজমেন্ট এই বিষয় নিয়ে আমাদের সঙ্গে আলোচনা করলেই পারত। কিন্তু বীরেন্দ্র শেহবাগ, জহির খান এবং আমার সঙ্গে কোনো আলোচনাই করা হয়নি। তার আগেই দল থেকে বাদ দেয়া হয়। ’

২০১১ সালে যুবরাজের শরীরে ক্যান্সার ধরা পড়েছিল। টানা তিন বছর জীবনের সঙ্গে লড়াই করে ফের জাতীয় দলে ফিরে ছিলেন যুবরাজ। কিছুদিন পর চোটের কারণে ফের বাদ পড়ে যান। চোট কাটিয়ে সুস্থ হলেও তাকে ইয়ো ইয়ো টেস্ট দিতে বাধ্য করা হয়।

এ ব্যাপারে যুবরাজ সিং বলেন, ’চোটের জন্য দল থেকে বাদ পড়ি। তখন বলা হয়েছিল শ্রীলংকা সফরের জন্য প্রস্তুতি নিতে। তারপর আচমকাই ইয়ো ইয়ো টেস্টের কথা সামনে এসে পড়ে। তাই বাধ্য হয়ে ৩৬ বছর বয়সে ইয়ো ইয়ো টেস্টের জন্য পরিশ্রম শুরু করি। অনেকে ভেবেছিল যে, এই বয়সে ইয়ো ইয়ো টেস্টে পাস করতে পারব না। কিন্তু ইয়ো ইয়ো টেস্টে পাস করায় সবাই অবাক হয়ে যান। ’

২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে শেষবার খেলেন যুবরাজ সিং। পাকিস্তানের বিপক্ষে অনবদ্য অর্ধশতরান করলেও পরের ম্যাচেই বাদ পড়েন যুবি।

এ ব্যাপারে ভারতের সাবেক এ অলরাউন্ডার বলেন, ’চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে দুটি ম্যাচে সেরা হয়েছিলাম। তারপরও যে আমাকে দল থেকে বাদ পড়তে হবে তা ভাবতে পারিনি। ’

ভারতের হয়ে টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টিতে ৪০২ ম্যাচ খেলে ১৭ টি সেঞ্চুরি আর ৭১ টি ফিফটির মাধ্যমে ১১ হাজার ৭৭৮ রান সংগ্রহের পাশাপাশি বল হাতে ১৪৮ উইকেট শিকার করেন। ভারতের এই সফল ক্রিকেটার টানা দুই বছর জাতীয় দলে সুযোগ না পেয়ে হতাশ হয়েই চলতি বছরের জুনে মুম্বাইয়ের এক হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করে ক্রিকেটকে বিদায় বলে দেন যুবরাজ।


Source link